খবর

আসতে চলেছে, নতুন ধারাবাহিক “আলোর ঠিকানা”

আত্রেয়ী: একটি মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে আলো, পড়াশোনাকে ধ্যান-জ্ঞান করেই যার বেড়ে ওঠা। বাবার স্বপ্নগুলোকে নিজের স্বপ্ন ভেবে ছুঁতে চাওয়া আলোর কাছে একদিন একটি স্বনামধন্য ব্যবসায়ী বাড়ির ছোটো ছেলের জন্য বিয়ের সম্বন্ধ আসে। আশ্চর্যজনক ভাবে যে বাবার স্বপ্নের ওপর ভর করে আলো স্বপ্ন দেখত, সেই বাবাই তার কাছে বিয়ের সম্বন্ধটা নিয়ে আসে। আলো তার বাবাকে স্বপ্ন পূরণের কথা বলতে তিনি বলেন যে, আলো যে বাড়িতে বিয়ে হয়ে যাচ্ছে সে বাড়িতে নাকি বৌদের মর্যাদাই আলাদা, সেই বাড়িই হবে তার স্বপ্নপূরণের চাবিকাঠি। বিয়ের পর আলো এসে পড়ে এক অবাক করা পরিবেশে। আলোর শ্বশুরবাড়িতে, তার তিন ভাসুর ঘরের কাজকর্ম সামলায় আর তিন জা ব্যবসা সামলায়। কিন্তু সামনে থেকে যা দেখা যায় সেটাই কি আসল সত্যি?

আলোর বাবার কথা কি আদেও ঠিক?শ্বশুর বাড়ির এক অজানা রহস্যের জালে জড়িয়ে পড়ে আলো। সেই রহস্যের উন্মোচন করতে গিয়ে এই পরিবারের এক কঠিন সত্যির মুখোমুখি হয় সে, যার ফলে তার জীবনে নেমে আসে নানান সংকট। কি সেই সত্যি? কীভাবে সমস্ত প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে লড়াই করে, নিজের সম্মান, স্বাধীনতা অক্ষুন্ন রেখে নিজের স্বপ্ন পূরণ করবে আলো? জানতে হলে চোখ রাখুন সান বাংলার পর্দায়, আসছে-“আলোর ঠিকানা”।

আলোর ভূমিকায় অভিনয় করছেন দেবাদৃতা বসু। আলোর স্বামী অর্থাৎ অভিরাজের ভূমিকায় অভিনয় করছেন শৌর্য্য (জন) ভট্টাচার্য্য। আলোর বাবা ও মার ভূমিকায় আছেন নীল(সুজন) মুখার্জী  এবং কৌশিকী। আলোর মামা-মামির চরিত্রে অভিনয় করেছেন যুধজিৎ এবং শম্পা ব্যানার্জী। আলোর শাশুড়ির চরিত্রে রয়েছেন অতি পরিচিত মুখ দোলন দি। অভিরাজের ঠাম্মার চরিত্রে আছেন রত্না ঘোষাল। অভিরাজের তিন দাদার ভূমিকায় আছেন শংকর দেবনাথ (বড়দাদা), জয়জিৎ ব্যানার্জী (মেজদাদা) এবং অনিন্দ্য পুলক। অভিরাজের তিন বৌদির ভূমিকায় অভিনয় করছেন মৈত্রী দি(বড়বৌদি), জয়শ্রী মুখার্জী (মেজবৌদি) এবং সাক্ষী (ছোটোবৌদি)। ভিন্ন স্বাদের এই ধারাবাহিকটি শুরু হচ্ছে ১৯শে সেপ্টেম্বর থেকে, রোজ রাত ৯:৩০টায়।