খবর

মিথ্যা বলতে বলতে ওনার (মুখ্যমন্ত্রীর) সত্য বলার অভ্যাসটাই চলে গেছে- দিলীপ ঘোষ

dilip-eco-park

সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়: আজ সকালে কলকাতার অন্যতম ইকো পার্কে প্রাতঃভ্রমন ও শরীর চর্চার ফাঁকে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ গতকালের বোলপুরে তৃণমূল কংগ্রেসের পদযাত্রা ও সভাকে কটাক্ষ করে বলেন, ‘আসলে তৃণমূল দলটা লক্ষ গুনতেই জানে না। হাজার ও লক্ষের মধ্যে পার্থক্য কী তাই ওরা জানে না, সেজন্য নিজের নিজেদের ঢাক পেটাচ্ছেন, পেটান; আমরাও করেছি, আমরাও ব্যারাকপুরে করেছি, সেখানেও লক্ষ লক্ষ মানুষ ছিল।’ দিলীপ ঘোষ দাবী করেন এই রাজ্যের তৃণমূল এখন ওনাদের পেছনে যাচ্ছে, কারণ হিসাবে তিনি বলেন বিজেপি এজেণ্ডা ঠিক করছে আর তৃণমূল তা অনুসরণ করছে। আদিবাসীদের ও বাউলদের বাড়িতে অমিত শাহ’র খাওয়া নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কথার উত্তরে দিলীপ বাবু বলেন, ‘ওনার কষ্ট ওনাকে (মুখ্যমন্ত্রীকে) তো কেউ নেমতন্ন করে খাওয়াচ্ছে না, এই দুদিন বাঁকুড়া থাকলেন ভেবেছিলেন কেউ ওনাকে নেমতন্ন করবে, খাওয়াবে, কিন্তু কেউ কিন্তু ওনাকে ডেকে খাওয়ালেন না, আসলে ওনাকে কেউ আর বিশ্বাসী করে না। এখন আবার নতুন ফান্ডা হয়েছে কারও বাড়ি গেলে বউ চুরি করে নেবে, আর এই ভয়েই কেউ টিএমসি’র লোকেদের বাড়িতে ডাকে না।

আরও পড়ুন:  এই মূহুর্তে রাজনীতিতে বেশ কিছু উন্মাদের জণ্মলাভ হয়েছে-পার্থ চট্টোপাধ্যায়

আরও পড়ুন:    দেশে সুপ্রিম কোর্ট আছে, তথ্যের ভিত্তিতেই সবকিছু প্রমাণ হয়-দিলীপ ঘোষ

বহিরাগত প্রসঙ্গে দিলীপ বাবু বলেন, ‘তৃণমূল পার্টিটাই কদিন পর বহিরাগত হয়ে যাবে।’ এর সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখন নিজের দলে কাউকে বিশ্বাস করতে পারছেন না, তাই কাঁথি পৌরসভা থেকে সৌমেন্দু অধিকারীকে সরিয়ে দিয়েছেন। তিনি যেমন কাউকে বিশ্বাস করতে পারছেন না, সাধারণ মানুষও আর তাকে বিশ্বাস করতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন দিলীপ ঘোষ, অন্যদিকে তিনি মন্তব্য করেছেন কলকাতায় যে সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলি আছে সেগুলি সবকটা রাজনৈতিক আখড়া হয়ে গেছে, কিন্তু বিশ্বভারতীতে তা কখনোই হতে দেওয়া যাবে না বলেও তিনি মন্তব্য করেছেন, এছাড়াও দিলীপ বাবু বলেন, ‘মিথ্যা বলতে  বলতে ওনার(মুখ্যমন্ত্রীর) সত্য বলার অভ্যাসটাই চলে গেছে’। দিলীপ বাবু বলেন কৃষকদের পাশে তৃণমূল সরকারের মুখ্যমন্ত্রী কখনোই ছিলেন না, যদি থাকতেন তাহলে কৃষকদের এত কম দামে উৎপন্ন ফসল বিক্রি করে বেশি দামে কিনতে হতো না, তারা পাঁচ টাকা ৩ টাকা দামে আলু পেঁয়াজ বিক্রি করে ৫০ টাকা ৮০ টাকা করে আলু পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে। কিন্তু বিজেপিই একমাত্র কৃষকদের পাশে আছে এবং তাদের অনেক সুবিধা দিয়েছে। দিলীপ বাবু বলেন, ‘আসলে তৃণমূল সরকার ইলেকশন কে ভয় পাচ্ছে। তাই পুরসভার ভোট হচ্ছে না। আগামী দিনে মানুষ তৃণমূল সরকারের পাশে থাকবে না’।

আরও পড়ুন:  রিষড়ার সৌহার্দ্য কাপ-২০২০ ফুটবল প্রতিযোগিতা

আরও পড়ুন:  মগরা লোকচেতনা আয়োজিত অষ্টম বার্ষিক লোক সংস্কৃতি উৎসব