খবর

‘রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর বিজেপি’র এজেন্ট’- কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়

123166271_687292765539458_6নিজস্ব সংবাদদাতা: হুগলি জেলা তৃণমূল কংগ্রেস নিজেদের মধ্যে সকল দ্বন্দ ভুলে ইতিমধ্যেই আগামী ২০২১এর বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে জেলার কোর কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গত ১ নভেম্বর থেকেই জেলার বিভিন্ন প্রান্তে শুরু করেছেন জনসভা। এইরকমই দুটি জনসভায় কার্যত জনসমুদ্রের ঢেউ তুলে জেলা তৃণমূল নেতৃত্বরা শুরু করে দিয়েছেন আসন্ন বিধানসভা ভোটের প্রচার। মূলতঃ এই জনসভাগুলিতে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের জনবিরোধী কৃষি বিল ও দেশের বিজেপি শাসিত প্রধান প্রধান রাজ্যগুলিতে দলিত ও অন্য সম্প্রদায়ের মানুষদের ওপর যে অত্যাচার চলছে তার বিরুদ্ধে সুর ছড়াতে দেখা যাচ্ছে তৃণমূল নেতৃত্বদের। এই জেলার অন্যতম লড়াকু নেতা হিসাবে পরিচিত শ্রীরামপুরের সাংসদ কল্যান বন্দ্যোপাধ্যায়ের গলায় পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপালের বর্তমান ও অতীতের কার্যকলাপ নিয়ে কটাক্ষ করতে ও এই রাজ্যের বিজেপি ক্ষমতা আসতে চাইছে কিন্তু তাঁদের মুখ্যমন্ত্রী কে হবে তাই নিয়েই বিজেপির অন্দরমহলে সার্কাসের ট্রাপিজের খেলা চলছে বলে কটাক্ষ করতেও শোনা যায়। কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, এই রাজ্যে বিজেপি’র নেতারা যতই স্বপ্ন দেখুক না কেন, যতই ভয় দেখক না কেন বা যতই লাফালাফি/ঝাঁপাঝাঁপি করুক না কেন আগামী ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনে আবারও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে তৃতীয় বারের জন্য এই রাজ্যের মসনদে বসতে চলেছেন প্রায় ২০০’র বেশি আসনে জিতে। কল্যাণবাবু রাজ্যের রাজ্যপাল জগদীপ ধনকরের উদ্দেশ্যে হুংকার দিয়ে বলেন আপনি ও আপনার নেতা অমিত শাহ যদি মনে করেন এই রাজ্যে ৩৫৬ প্রয়োগ করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বেআইনি ভাবে উত্‍খাত করবেন তাহলে জেনে রাখুন সারা বাংলার মানুষ গর্জে উঠে প্রমাণ দেবে ও ২০২১এর মে মাসে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ২৬০ থেকে ২৭০ টি আসনে জয়লাভ করে আবারও এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হবেন। কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আটকানোর ক্ষমতা জগদীপ বাবু, অমিত শাহদের নেই। কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যপাল জগদীপ ধনকরকে বিজেপি’র সরাসরি এজেন্ট বলে বলেন, ‘জগদীপ বাবু সময় সুযোগ পেলে বিজেপি’র অফিসটও দুবেলা ঝাঁট দিয়া আসেন। যদিও ভারতের সুপ্রীম কোর্টের নির্দেশ আমাদের দেশের কোন রাজ্যের রাজ্যপাল কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনে এজেন্ট হিসাবে কাজ করতে পারবেন না।’

output_9W9bpBgif advtUntitled-1Untitled-2