খবর

সুন্দরবনে নাবালকের বিয়ে আটকাল পুলিশ

s2

চাইল্ড লাইনের সদস্য শফিকুল ইসলাম

সৌমাভ মণ্ডল, উত্তর ২৪ পরগণা: বসিরহাট মহকুমার সুন্দরবনের হিঙ্গলগঞ্জ থানার পশ্চিম মামুদপুরের ঘটনা। বছর ১৫ এর আজগার মোল্লার সঙ্গে বিয়ের ঠিক হয়েছিল বছর পঁচিশের যুবতীর, যার বাড়ি মালদা জেলায়। শুক্রবার সকালে বিয়ের প্রস্তুতি শেষ।  সকাল থেকে আশীর্বাদ, মেহেন্দিও সম্পন্ন হয়েছে। লকডাউনের কারণে যুবতী তার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে হাজির ছেলের বাড়িতে। বিয়ের প্যান্ডেল থেকে দুপুরের খাবারের মেনুও তৈরী। একে একে আত্মীয় স্বজনরাও ভিড় জমাচ্ছে। ১৫ বছরের কিশোরের সঙ্গে ২৫ বছরের যুবতীর বিয়ের কথা জানতেই  গ্রামবাসীর প্রথমে  হাসনাবাদ চাইল্ড লাইনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এরপর হিঙ্গলগঞ্জ থানা ও বিডিওর সঙ্গে যোগাযোগ করে চাইল্ড লাইনের সদস্যরা। পাত্রের বাবা এস্কান্দর শেখ তার নাবালক আজগার মোল্লার থেকে ১০ বছরের বড় যুবতীর সঙ্গে বিয়ে দিচ্ছে। এই খবর জানাজানি হতে চাইল্ড লাইনের সদস্য শফিকুল ইসলাম এই বিয়ের বন্ধের ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করেন। পুলিশ ও বিডিওর প্রতিনিধি সঙ্গে চাইল্ড লাইনের সদস্যরা গিয়ে বিয়ে বন্ধ করে দেন। বিয়ে বাড়িতে পুলিশ প্রশাসন ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যদের দেখে গা ঢাকা দেয় পাত্র-পাত্রী পরিবারের সদস্যরা। হিঙ্গলগঞ্জ থানার পুলিশ নাবালকের মা আসমা বিবিকে আটক করে থানায় আনেন। এই ঘটনা জানতে পেরে পাত্র, পাত্রী ও পরিবারের অন‍্যান‍্য সদস্যরা হিঙ্গলগঞ্জ থানায় হাজির হন। পুলিশ পাত্রের বাবা এস্কান্দর গাজি ও মা আসমা বিবির কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে নেন। তারপর ঐ নাবালক ও যুবতী সহ পরিবারের সদস্যদের ছেড়ে দেয়। বাবা ও মা মুচলেকা দেয় যতক্ষণ পর্যন্ত তাদের ছেলে সাবালক না হবে ততদিন বিয়ে দেবেন না। এই প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পর পুলিশ তাদেরকে ছেড়ে দেয়।