খবর

মাত্র ২২ দিনে সাজা দিয়ে নজির কলকাতা পুলিশের

Lalbazarনিজস্ব সংবাদদাতাঃ মাত্র ২২ দিনে অপরাধীর সাজা দিয়ে রেকর্ড সৃষ্টি করল কলকাতা পুলিশ। সারা ভারতের মধ্যে কলকাতা পুলিশ চিরকালই বিশেষ সুনামের সঙ্গে কাজ করে চলেছে একথা অনস্বীকার্য। আবারও সেই নিদর্শন রাখলেন কলকাতা পুলিশের কৃতী পুলিশ মহল। গত ১১ মার্চ রাতে উত্তর কলকাতার চিত্‍পুর থানায়  ১৬ বছরের এক কিশোরীর শ্লীলতাহানির তথা যৌন হেনস্তার এক গুরুতর অভিযোগের ভিত্তিতে কলকাতা পুলিশের অন্তর্গত চিত্‍পুর থানা সেই রাতেই ওই কিশোরী এবং তাঁর মায়ের অভিযোগে অভিযুক্ত স্থানীয় বশির খান কে গ্রেপ্তার করেন। ঘটনাটা ছিল এই রকম ওইদিন রাত ১০ টা থেকে ১১টার মধ্যে এক সময়ে ওই কিশোরী মেয়েটি এলাকার সাধারণ শৌচালয়ে যায়, সেই মূহুর্তে শৌচালয়ের অন্ধকারের সুযোগ নিয়ে তাঁর ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে বশির খান নাম্নী ওই যুবক। নিজের উপস্থিত বুদ্ধির জেরে নিজেকে ওই দুষ্কৃতীর হাত থেকে কোনমতে ছাড়িয়ে পালায় ওই নিগৃহিতা কিশোরী।  সব থেকে উল্লেখযোগ্য যে বিষয়টি সেটি হলো এই কেসে কলকাতা পুলিশের চিত্‍পুর থানা পসকো আইনে গ্রেপ্তার করা বশির খানের বিরুদ্ধে মাত্র ৭ দিনের মধ্যেই আদালতে চার্জশিট প্রদান করে, এবং মাত্র ২২ দিনের মাথায় আদালত সকল সাক্ষ্য-প্রমাণের ওপর ভিত্তি করে  কিশোরীর যৌন হেনস্থা করা অভিযুক্ত বশির খানের ৫ বছরের জন্য সশ্রম কারাদন্ড ও দশ হাজার টাকা জরিমানার রায় দেয়। আদালতের রায়ে আরও বলা হয়েছে জরিমানা অনাদায়ে সাজাপ্রাপ্ত বশির খানের সাজার মেয়াদ আরও ছয় মাস বৃদ্ধি পাবে। এই কেসের তদন্তকারী অফিসার ছিলেন চিৎপুর থানার সাব ইনস্পেকটর ষষ্ঠীধর মাহাতো। যাঁর অসামান্য তত্‍পরতায় এই ঘৃণ্য অপরাধী আজ সাজাপ্রাপ্ত।

এত শীঘ্র অপরাধীকে সাজা দেওয়া একমাত্র কলকাতা পুলিশের পক্ষেই সম্ভবপর। যে কলকাতা পুলিশকে তুলনা করা হয় বিখ্যাত স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডের সঙ্গে, তাঁরা সত্যিই আবার এই ঘটনার মধ্য দিয়ে প্রমাণ করল আজও আমাদের ভারতবর্ষের মধ্যে আইন শৃংখলা রক্ষায় সবার সেরা কলকাতা পুলিশ। তার সঙ্গে এটাও অনস্বীকার্য এখনো অবধি আমাদের এই বাংলায় অপরাধীরা সাজা করে সহজে পার পায় না, বিশেষ করে কলকাতা পুলিশের কাছ থেকে। (ছবি সহায়তা কলকাতা পুলিশ ফে.বু. পাতা)