Uncategorized

রঘুরাজপুরের পটচিত্র

বাঙ্গালির কাছে সৈকত নগরী পুরী চিরকালীন। পুরী নামটা শুনলেই ভ্রমণ পিপাসু বাঙ্গালির মননে-চিন্তনে সহসাই উদ্ধাষিতহয় ভ্রমণের সদিচ্ছা। মন চায় বেরিয়ে পড়তে সব ছেড়ে জগন্নাথ দর্শণে, সঙ্গে উপরি পাওনা নীলাচল দিগন্ত বিস্তৃত বঙ্গোপসাগর। বাঙালি অথচ পুরী যাননি এ যেন ঠিক মেনে নেওয়া যায় না। পুরী আমরা সকলেই যাই কিন্তু পুরী শহর থেকে মাত্র ১১ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত শিল্পগ্রাম রঘুরাজপুরের কথা কতজনই বা জানি বা জানার চেষ্টা করি? মানচিত্রে রঘুরাজপুরের নাম নাও মিলতে পারে। এই গ্রামটি আসলে জনকাদেইপুর নামক একটি গ্রামের অংশ। এই গ্রামে বয়ে চলেছে ভার্গবী নদী। এই নদীরে পারে অবস্থান করছে উড়িষ্যার এই শিল্পগ্রাম রঘুরাজপুর।আর এই রঘুরাজপুর বিখ্যাত তার শিল্পকলার জন্য। এখনকার পটচিত্রের খ্যাতি জগত্‍জোড়া। এই স্থানের পত্রচিত্রে প্রভু জগন্নাথের প্রভাব কেমন বা এই গ্রামটির সম্পর্কে বিশদ পর্যটকদের সামনে তুলে ধরতে লেখিকা অনিতা বসু’র লেখা একখানি বই প্রকাশ hol গত ২৮ জুলাই দক্ষিণ কলকাতার গোলপার্ক রামকৃষ্ণ মিশন ইন্সটিটিউট অফ কালচারের তুরিয়ানন্দ হল থেকে। উড়িষ্যার পটচিত্র ও তার ইতিহাস তার সঙ্গে এই সুন্দর গ্রামটির সাধারণের জীবনযাত্রা সবই স্থান পেয়েছে এই বইতে। পর্যটক থেকে সাধারণ সকলেই উপকৃত হবেন এই বইটি থেকে এ কথা বলাই যায়।

Categories: Uncategorized